র‌্যামের দাম বাড়ার কারন

দেশীয় বাজারে প্রযুক্তি পণ্য র‌্যামের দাম বেড়ে গেছে তরতর করে। ছয় মাস ধরেই একটু একটু করে এর দাম বাড়ছিল, সম্প্রতি তা হয়ে গেছে দ্বিগুণেরও বেশি। র‌্যামের সংকট তৈরি হওয়া ও পর্যাপ্ত সরবরাহ না থাকাই এর কারণ। সংশ্লিষ্টদের মন্তব্য, বাজার থেকে স্মার্টফোন প্রতিষ্ঠানগুলো (বিশেষ করে আইফোন) মেমোরি ও চিপ কিনে স্টক করে ফেলায় ঘাটতি পড়েছে র‌্যামের।

 

ধারণা করা হচ্ছে, শিগগিরই র‌্যামের দাম বৃদ্ধির প্রভাব পড়বে ডেস্কটপ কম্পিউটার ও ল্যাপটপের ক্ষেত্রে। আবার অনেকের ভাষ্য, ‘র‌্যামের উৎপাদক প্রতিষ্ঠানগুলো একেক সময় একেক দিকে মনোযোগ দিয়ে থাকে। তারা স্মার্টফোনের র‌্যামের দিকে ঝোঁকায় বাজারে কম্পিউটারের র‌্যামের সংকট দেখা দিয়েছে।’

সংশ্লিষ্টরা মনে করেন, যাদের ডেস্কটপ ও ল্যাপটপ আগেই মজুত করা ছিল তারা কম দামে বিক্রি করতে পারলেও নতুন আমদানির বেলায় সংকট তৈরি হবে। এর সরাসরি প্রভাব পড়বে ক্রেতাদের ওপরে। কম্পিউটার আমদানিকারক, পরিবেশক ও খুচরা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে এমন আভাস পাওয়া গেছে।

বাজারে এ-ডাটা র‌্যামের আমদানিকারক গ্লোবাল ব্র্যান্ড প্রাইভেট লিমিটেডের চেয়ারম্যান মো. আবদুল ফাত্তাহ র‌্যামের দাম বৃদ্ধির বিষয়টি স্বীকার করেন। তবে কী কারণে দাম বেড়েছে সে বিষয়ে তিনি কোনও মন্তব্য করতে চাননি।

ছয় মাস আগে কিছু র‌্যামের দাম ছিল ২ হাজার ৮০০ থেকে ৩ হাজার টাকা। এখন তা বিক্রি হচ্ছে ৭ হাজার ৮০০ টাকায়। আর ১ হাজার ৬০০ থেকে ২ হাজার টাকার র‌্যাম এখন বিক্রি হচ্ছে ৪ হাজার ৩০০ থেকে ৪ হাজার ৪০০ টাকায়। দাম বৃদ্ধির এই হারকে আশঙ্কাজনক অভিহিত করে সংশ্লিষ্টরা বলছেন— এতে করে ডেস্কটপ ও ল্যাপটপ কম্পিউটারের দাম বেড়ে যাবে।

বাজার ঘুরে দেখা গেছে, এ-ডেটা র‌্যামও ক্ষেত্রবিশেষে দ্বিগুণ দামে (৮ গিগা র‌্যাম ৭ হাজার ৬০০ থেকে ৭ হাজার ৭০০ টাকায়) বিক্রি হচ্ছে। আর ৪ গিগার র‌্যাম বিক্রি হচ্ছে ৪ হাজার ৩০০ টাকায়। ট্রান্সসেন্ড ব্র্যান্ডের ৮ গিগা (ডিডিআর-৪) র‌্যামের দাম ৭ হাজার ৭০০ টাকা।

ঢাকা আবহাওয়া
০১ জানুয়ারি, ১৯৭০
ফজর
জোহর
আসর
মাগরিব
ইশা
সূর্যাস্ত : ৬:০৬সূর্যোদয় : ৫:৪৪

আর্কাইভ