সোয়া কোটি ছাড়াল ফোরজি সংযোগ

এক বছরেরও কম সময়ে দেশে ফোরজি সংযোগ এক কোটি ১৭ লাখ ছাড়িয়েছে। দেশে চতুর্থ প্রজন্মের মোবাইল সেবা চালুর পর থেকে গ্রাহকদের উচ্চ গতির এ নেটওয়ার্কে যুক্ত হওয়ার আগ্রহ বাড়ছে। এদের বেশিরভাগই উচ্চ গতির ডেটা ব্যবহারের জন্য ফোরজি সেবা নিচ্ছেন। বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, ডিসেম্বরে  ফোরজি সংযোগের সংখ্যা এক কোটি ছাড়ায়। এ সময়ে থ্রিজি সংযোগ আছে আরও ছয় কোটি ৩৫ লাখ। এক বছর আগেও এ সংখ্যা ছিল চার কোটি ৯৩ লাখ।

ফোরজি ও থ্রিজি মিলিয়ে দেশে এখন উচ্চগতির মোবাইল ইন্টারনেট সংযোগ দাঁড়াচ্ছে সাত কোটি ৫২ লাখ। এর বাইরে আরও এক কোটি চার লাখ মোবাইল ইন্টারনেট সংযোগ আছে, যেগুলো এখনও টুজি সংযোগ ব্যবহার করছে। গত বছর ফেব্রুয়ারিতে ফোরজি’র লাইসেন্স পায় চারটি মোবাইল ফোন অপারেটর। এর পর দিন থেকেই সেবা দেওয়া শুরু করে তিন অপারেটর।

গত ১০ মাসের কিছু বেশি সময় নেটওয়ার্ক বাড়ানো এবং গ্রাহক সংগ্রহের কাজ জোরেশোরে করছে অপারেটরগুলো। এর মধ্যে রাষ্ট্রায়াত্ত অপারেটর টেলিটক ১৬ ডিসেম্বরে থেকে রাজধানীতে খুবই সীমিত পরিসরে ফোরজি সেবা দেওয়া শুরু করেছে। অপারেটর সূত্রে জানা গেছে, ফোরজি গ্রাহকের দিক দিয়ে বড় দুই অপারেটর গ্রামীণফোন ও রবি নেতৃত্ব দিচ্ছে। নভেম্বরে গ্রামীণফোন ঘোষণা দেয় তাদের ফোরজি গ্রাহক ৫০ লাখ পেরিয়েছে। এক দিন পরে রবিও একই মাইলফলক অর্জনের কথা জানায়।

সম্প্রতি এক অনুষ্ঠানে রবি’র সিইও মাহাতাব উদ্দিন আহমেদ জানিয়েছেন, তারা এখন ফোরজিতে নেতৃত্ব দিচ্ছেন এবং তাদের ফোরজি সংযোগ ৬০ লাখ। সবচেয়ে বড় ফোরজি নেটওয়ার্কের মালিকও এখন তারা বলে দাবি করেন তিনি। বাংলালিংক অবশ্য কখনই ১২ লাখের বেশি ফোরজি সংযোগের দাবি করেনি।

এদিকে টেলিযোগাযোগ সাংবাদিকদের সংগঠন টেলিকম রিপোর্টার্স নেটওয়ার্ক বাংলাদেশের (টিআরএনবি) সংগঠনের সঙ্গে গত বুধবার এক মতবিনিয়ম সভায় বিটিআরসি’র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জহরুল হক জানান, ফোরজি দিয়ে তারা টেলিকম সেবায় নতুন এক মাত্রা নিয়ে এসেছেন। সামনের দিনে উচ্চ গতির এই মোবাইল ইন্টারনেটই গোটা দেশের ইন্টারনেট খাতকে নিয়ন্ত্রণ করবে।

ঢাকা আবহাওয়া
০১ জানুয়ারি, ১৯৭০
ফজর
জোহর
আসর
মাগরিব
ইশা
সূর্যাস্ত : ৬:০৬সূর্যোদয় : ৫:৪৪

আর্কাইভ