ইন্স্যুরেন্স এখন হাতের মুঠোয়

ইন্স্যুরেন্স আমাদের দৈনন্দিন জীবনে ঝুঁকি মোকাবেলার অত্যন্তু গুরুত্বপূর্ণ একটি হাতিয়ার। আমাদের ভবিষ্যৎ সর্বদা অনিশ্চয়তায় ভরপুর। জীবনের যে কোন অনিশ্চয়তায় আর্থিক সহযোগিতার মাধ্যম হিসাবে অতি প্রাচীনকাল থেকেই ইন্স্যুরেন্স ব্যবহৃত হয়ে আসছে। আমাদের দেশেও স্বাধীনতাপূর্ব সময় থেকে ইন্স্যুরেন্স প্রচলিত। স্বাধীনতার পর থেকে এখন পর্যন্ত ৭৮টি ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি আমাদের দেশে ব্যবসা করছে যার মধ্যে ৩২টি হচ্ছে লাইফ ইন্স্যুরেন্স। লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানিগুলো শুধু মানুষের জীবনের উপর ইন্স্যুরেন্স করতে পারে।

জীবনের সাথে সর্ম্পকিত ভবিষ্যৎ আর্থিক অনিশ্চয়তা থেকে মুক্তি পেতে লাইফ ইন্স্যুরেন্সের তুলনা নেই। যেমন আপনার অসুস্থতাজনিত চিকিৎসা খরচের জন্য স্বাস্থ্য বীমা করতে পারেন, আপনারা শিশুর শিক্ষা নিশ্চিতের জন্য শিক্ষা বীমা করতে পারেন। কিন্তু আমাদের দেশে ইন্স্যুরেন্স করা মোটামুটি একটি কষ্ঠসাধ্য ব্যাপার। পাশাপাশি যেই ফাইন্যানশিয়াল এ্যাডভাইজারের মাধ্যমে আপনি ইন্স্যুরেন্সটি করছেন তাকে বিশ্বাস করাটিও একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। এজন্য আপনি চাইলে সরাসরি কোম্পানি থেকে নিজে কোম্পানিকে অর্থ পরিশোধ করেও ইন্স্যুরেন্স কিনতে পারেন। এজন্য আপনি বেছে নিতে পারেন ‘ডিজিটাল ইন্স্যুরেন্স’।

ডিজিটাল ইন্স্যুরেন্স কি?
ডিজিটাল ইন্স্যুরেন্স হচ্ছে ডিজিটাল পদ্ধতি ব্যবহার করে (ওয়েবসাইট/মোবাইল) ইন্স্যুরেন্স করা। ডিজিটাল ইন্স্যুরেন্স অনলাইন ইন্স্যুরেন্স হিসাবেই বেশি পরিচিত। অনলাইনে আপনি ইন্স্যুরেন্স কিনার আনুষঙ্গিক কাজ সম্পূর্ণ করে আপনার জন্য নির্ধারিত প্রিমিয়াম অনলাইনেই পরিশোধ করে তৎক্ষণাৎ কাভারেজের আওতায় চলে আসতে পারেন ডিজিটাল ইন্স্যুরেন্সের মাধ্যমে।

আপনি কেন ডিজিটাল ইন্স্যুরেন্স নিবেন?
ডিজিটাল ইন্স্যুরেন্সের সবচেয়ে বড় সুবিধা হচ্ছে এর সহজলভ্যতা। দিন কিংবা রাতের যে কোন সময় আপনি প্রয়োজনীয় তথ্য দিয়ে ইন্স্যুরেন্স কিনতে পারেন। তাছাড়া ডিজিটাল পদ্ধতিতে আপনাকে স্বাস্থ্য পরীক্ষার ঝামেলায় যেতে হবে না। আপনি আপনার টাকা পরিশোধের তৎক্ষণিক রশিদও পেয়ে যাবেন।

বাংলাদেশে ডিজিটাল লাইফ ইন্স্যুরেন্স- ইজিলাইফ
এখন পর্যন্ত বাংলাদেশে শুধু একটি কোম্পানিই ডিজিটাল ইন্সুরেন্স বিক্রি করছে। গার্ডিয়ান লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ‘ইজিলাইফ’ একটি পূর্ণাঙ্গ ডিজিটাল ইন্স্যুরেন্স। এটি একটি অনলাইন টার্ম লাইফ ইন্স্যুরেন্স যা আপনাকে মৃত্যু অথবা পূর্ণাঙ্গ অক্ষমতায় সম্পূর্ণ কাভারেজ প্রদান করবে। তাছাড়া ইজিলাইফের প্রিমিয়াম রিফান্ড অপশনও আছে যেটি নিলে আপনি মেয়াদপূর্তিতে প্রদানকৃত সম্পূর্ণ প্রিমিয়াম ফেরত পাবেন কিন্তু কোন লাভ বা বোনাস পাবেন না।

১৮ থেকে ৪৫ বছর বয়সের যে কোন  সুস্থ ব্যক্তি ইজিলাইফ ইন্স্যুরেন্স পলিসিটি কিনতে পারবে যদি তার টিআইএন নাম্বার থাকে। ইজিলাইফে একজন ব্যক্তি আপাতত ১ লাখ থেকে সর্বোচ্চ ১০ লাখ টাকার কাভারেজ পেতে পারেন। ইজিলাইফ একটি অত্যন্ত সহজ ইন্স্যুরেন্স পলিসি যার বিশেষত্ব হচ্ছে খুবই কম খরচে আপনি এটি নিতে পারবেন। এই ইন্স্যুরেন্স পলিসিটি বাজারে প্রচলিত সাধারণ ইন্স্যুরেন্স পলিসির মত না । কারণ আমাদের দেশে প্রচলিত সকল ইন্স্যুরেন্স পলিসিগুলোই সঞ্চয় বা সেভিংস ইন্স্যুরেন্স পলিসি। কিন্তু ইজিলাইফ হচ্ছে পশ্চিমা বিশ্বে সর্বাধিক প্রচলিত ইন্স্যুরেন্স পলিসি যার মধ্যে সঞ্চয়ের উপাদানটি নেই । এটি শুধু কোন ঘটনার প্রেক্ষিতেই (বীমাগ্রহীতার মৃত্যু অথবা পূর্ণাঙ্গ অক্ষমতায়) ইন্স্যুরেন্স সুবিধা প্রদান করবে ।

ডিজিটাল লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ভবিষ্যৎ
ভবিষ্যতে আরো বিভিন্নি ধরনের ডিজিটাল ইন্স্যুরেন্স বাংলাদেশে আসতে পারে। এখনকার তরুণ সমাজ অনেক বেশি প্রযুক্তি নির্ভর। অনলাইন সেবা গ্রহণেও তারা অনেক বেশি অভ্যস্ত হচ্ছে। এই প্রেক্ষিতে নতুন প্রযুক্তি নির্ভর জেনারেশনের জন্য ডিজিটাল ইন্স্যুরেন্সের বিকল্প নেই। তাছাড়া যুগের সাথে তাল মিলিয়ে ইন্স্যুরেন্স ইন্ডাস্ট্রিকেও আধুনিক হতে হবে যা আরো নতুন নতুন ঝুঁকি মোকাবেলায় আমাদের সহযোগিতা করবে।

ঢাকা আবহাওয়া
০১ জানুয়ারি, ১৯৭০
ফজর
জোহর
আসর
মাগরিব
ইশা
সূর্যাস্ত : ৬:০৬সূর্যোদয় : ৫:৪৪

আর্কাইভ